তামিম ইকবাল ‘৩০০’ নট আউট

মুশফিকুর রহিম ও সাকিব আল হাসানের পর তৃতীয় বাংলাদেশি হিসেবে নিজ দেশের জার্সিতে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ৩০০ ম্যাচ খেলার মাইলফলক স্পর্শ করলেন তামিম ইকবাল।কিংস্টনে স্বাগতিক উইন্ডিজ ক্রিকেট দলের বিপক্ষে সিরিজ নির্ধারণী দ্বিতীয় টেস্ট ম্যাচে মাঠে নামার মধ্য দিয়ে আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারের অন্যতম এই মাইলফলক স্পর্শ করে রেকর্ড বইয়ে জায়গা করে নেন ২৯ বছর বয়সী দেশের অন্যতম প্রতিভাবান এই ব্যাটসম্যান।আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারে সর্বপ্রথম বাংলাদেশি হিসেবে ৩০০ ম্যাচে বাংলাদেশের জার্সিতে মাঠে নামার বিরল কীর্তি গড়েন মুশফিকুর রহিম। এরপর দ্বিতীয় বাংলাদেশি হিসেবে ভারতের দেরাদুনে আফগানিস্তানের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি ম্যাচ দিয়ে এই ক্লাবে প্রবেশ করেন সময়ের অন্যতম সেরা অলরাউন্ডার সাকিব।

অতঃপর আজ মুশফিক-সাকিবের পাশে নাম লেখালেন তামিম। আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারে তামিমের ম্যাচ সংখ্যা ৩০৪ হলেও, বিশ্ব একাদশের হয়ে ৪টি ম্যাচ খেলায় উইন্ডিজের বিপক্ষে আজই দেশের হয়ে কাঙ্ক্ষিত অর্জনটি নিজের করে নিলেন তিনি।

জাতীয় দলের হয়ে তৃতীয় ক্রিকেটার হিসেবে ৩০০ ম্যাচ খেলার অভিজ্ঞতা অর্জন করলেও একদিক দিয়ে সবার চেয়ে এগিয়ে তামিম। আর তা হলো দেশের হয়ে তিন ফরম্যাটের সবকয়টিতে বাংলাদেশের সর্বাধিক রান সংগ্রাহক হওয়ার অনবদ্য কৃতিত্ব স্থাপন করা। ২০০৭ সালে টাইগার শিবিরে অভিষেক হওয়ার পর ৩০০ ম্যাচে অংশ নিয়ে (৫৬ টেস্ট, ১৭৯ ওয়ানডে ও ৬৫ টি-টোয়েন্টি) সবার চেয়ে বেশি গড়ে (৩৩.৯৮) করেছেন ১১,৪৫৩ রান।তার থেকে চার ম্যাচ বেশি খেলে সাকিব আল হাসান রয়েছেন এই তালিকার দুই নম্বর অবস্থানে। বাঁহাতি এই অলরাউন্ডারের ঝুলিতে রয়েছে ৫০২ উইকেটের পাশাপাশি ১০,১১৪ রান। সাকিব-তামিম দুই সতীর্থের চেয়ে ১৭ ম্যাচে বেশি অংশ নেওয়া মুশফিকের অবস্থান দেশের হয়ে সর্বাধিক রান সংগ্রাহকের তালিকার ঠিক তিন নম্বর অবস্থানে। আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারে তার সংগ্রহ ৯,৪৬২ রান।

বাংলাদেশের জার্সিতে সর্বাধিক আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলা ক্রিকেটাররা হলেন-

ম্যাচ            নাম

৩১৭* মুশফিকুর রহিম
৩০৪* সাকিব আল হাসান
৩০০* তামিম ইকবাল
২৭৫ মাশরাফি মুর্তজা
২৬২* মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ

[বি.দ্র: * তারকা চিহ্নিত ক্রিকেটাররা উইন্ডিজের বিপক্ষে দ্বিতীয় টেস্ট খেলছেন বুঝানো হয়েছে।]

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *